| বিকাল ৩:৫৭ - রবিবার - ২৪শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ - ১০ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ - ১০ই জমাদিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

‘বঙ্গভ্যাক্স’ উৎপাদনের অনুমোতি পেল বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেক

পরীক্ষার জন্য ‘বঙ্গভ্যাক্স’ উৎপাদনের অনুমোতি পেল গ্লোব বায়োটেক; ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল এ মাসেই শুরু হতে পারে।

 

প্রাণিদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগে সফলতা মেলার তিন মাস পর মানবদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অনুমতি পেল গ্লোব বায়োটেক। আর দ্রুত অনুমোদন মিললে, মে-জুনের মধ্যেই বাজারজাত সম্ভব হবে বলে জানিয়েছে গ্লোব।

 

অ্যাস্ট্রাজেনিকার করোনাভাইরাসের টিকা ঠিক সময়ে পাওয়া নিয়ে বিতর্কের মধ্যেই দেশীয় প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেকের বঙ্গভ্যাক্স টিকা এগিয়ে নেয়ার খবরটি এলো।

 

সেপ্টেম্বরে প্রাণিদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগে যুক্তরাষ্ট্রের মডার্নার টিকার মতই ফল পাওয়ার কথা জানিয়েছিল গ্লোব।

 

আগে এর নাম ‘ব্যানকোভিড’ রেখেছিল। সেই নাম বদলে স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নান ‘বঙ্গভ্যাক্স’ রাখার প্রস্তাব দিলে তা মেনে নেন গ্লোব ফার্মাসিউটিক্যালসের চেয়ারম্যান মো. হারুনুর রশিদ।

 

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন কোম্পানি টিকা তৈরিতে নেমেছে, সেই দৌড়ে থাকা একমাত্র বাংলাদেশি কোম্পানি গ্লোব বায়োটেক।

 

সারা বিশ্বে যেসব টিকা তৈরির কাজ হচ্ছে সেগুলো পর্যবেক্ষণ করছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এর মধ্যে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পর্যায়ে আছে এমন ৪২টি টিকার একটি তালিকা এবং ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের আগের অবস্থায় (প্রি-ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল) থাকা ১৫৬টি টিকার আরেকটি তালিকা রয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার। ওই তালিকায় গ্লোব বায়োটেকের টিকার নাম রয়েছে।

 

মান্নান বলেন, সরকার দেশীয় প্রতিষ্ঠানের তৈরি টিকা করোনাভাইরাস মোকাবেলায় কাজে লাগাতে চায়। সেজন্য টিকা তৈরির কাজ এগিয়ে নিতে সহায়তা করতে চায় সরকার।

 

সুত্রঃ ডিবিসি

সর্বশেষ আপডেটঃ ২:০৭ অপরাহ্ণ | জানুয়ারি ০৬, ২০২১