| সকাল ৯:০৫ - মঙ্গলবার - ২৪শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ - ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ - ৮ই রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

দুই বস্তা হাড় ও মাথার খুলি উদ্ধারের ঘটনায় মামলা, বাপ্পী কারাগারে

লোক লোকান্তরঃ  ময়মনসিংহে ১২টি মাথার খুলি ও দুই বস্তা হাড় উদ্ধারের ঘটনায় দুইজনকে আসামি করে মামলা করেছে পুলিশ।

 

রোববার (১৫ নভেম্বর) রাতে কোতোয়ালী থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) রাশেদুল ইসলাম বাদী হয়ে এ মামলা করেন। এছাড়াও মামলায় ৩-৪ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

 

আসামিরা হলেন- নগরীর কালিবাড়ি কবরস্থান এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে বাপ্পী ও নগরীর তিনকোনা পুকুরপাড় এলাকার বাসিন্দা শাকিল। এদের মধ্যে আটক বাপ্পীকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

 

এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতোয়ালী থানা পুলিশের এসআই খোকন চন্দ্র সরকার বলেন, সোমবার (১৬ নভেম্বর) বিকেলে গ্রেফতার বাপ্পীকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে হাজির করা হয়।

 

 

আদালতের বিচারক আগামী ১৯ নভেম্বর রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। পরে বাপ্পীকে কারাগারে পাঠানো হয়।

 

আরও পড়ুন – ময়মনসিংহের লিফটে আটকা পড়লেন ১৮ আইনজীবী, অবশেষে উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিস 

 

উল্লেখ্য, শনিবার (১৪ নভেম্বর) গভীর রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ময়মনসিংহ শহরের আর কে মিশন রোড এলাকার একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে ১২টি মাথার খুলি ও দুই বস্তা হাড় উদ্ধার করা হয়। এ সময় বাপ্পী নামের একজনকে আটক করে পুলিশ।

 

ওসি জানান, কঙ্কাল চুরি চক্রের সদস্যরা জেলা-উপজেলার বিভিন্নস্থানে ছড়িয়ে রয়েছে। গোরস্থানের গোরখোর বা কবর খুঁড়াখুঁড়ির সঙ্গে জড়িতদের মাধ্যমে মৃত ব্যক্তির খবর চলে যায় এই পেশার সঙ্গে জড়িতদের কাছে।

 

তারা প্রথমে কবর থেকে লাশ তুলে নির্জনস্থান, গভীর অরণ্য বা পাহাড়ি জনপদে নিয়ে কেমিক্যাল ব্যবহারের মাধ্যমে পচিয়ে গরম পানি দিয়ে ধুয়ে মানবদেহের পূর্ণাঙ্গ কঙ্কাল সংগ্রহ করে।

 

পরে তুলে দেয়া হয় বিক্রির সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের হাতে বা পাচারকারীর হাতে। তাদের মাধ্যমে এই কঙ্কাল চলে যায় মেডিকেল শিক্ষার্থী-শিক্ষক, চিকিৎসকসহ পার্শ্ববর্তী দেশ নেপাল ও ভারতে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৮:১৭ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ১৬, ২০২০