|

ময়মনসিংহে চুরির মোবাইলের আইএমই নম্বর পরিবর্তনকারী গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ   ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) পৃথক অভিযানে মোবাইলের আইএমই নম্বর পরিবর্তনকারী , মোবাইল চোর, ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ডাকাত, মাদক ব্যবসায়ীসহ মোট ১১জনকে গ্রেফতার করেছে। এ সময় উন্নতমানের ৫টি মোবাইল, দেশীয় অস্ত্র ও আধাকেজি গাজা উদ্ধার করা হয়েছে।

 

এ ঘটনায় পৃথক তিনটি মামলা হয়েছে বলে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে ডিবির ওসি শাহ মোঃ কামাল আকন্দ শনিবার সকালে জানান।

 

প্রেস ব্রিফিংকালে ডিবির ওসি জানান, মোবাইল চোর চক্র একটি বিশাল সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ময়মনসিংহ শহরসহ আশপাশ এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে মোবাইল চুরি করে এনে মোবাইলের আইএমই নাম্বার পরিবর্তন করে বাজারজাত করছে।

 

ফলে হারানো মোবাইলগুলো শত চেষ্ঠা করেও উদ্ধার করা সম্ভব হচ্ছে না। এ ধরণের একাধিক খবরের প্রেক্ষিতে মোবাইলের আইএমই নম্বর পরিবর্তনকারী মিজবাউল হককে গ্রেফতারে করতে অভিযান চালানো হয়।

 

অভিযানে গত ৭ সেপ্টেম্বর শহরের সিকে ঘোষ রোড প্রেসক্লাব এলাকা থেকে আইএমই নম্বর পরিবর্তনকারী ইঞ্জিনিয়ার নেত্রকোণার মিজবাউল হকসহ, ময়মনসিংহ সদরের ঘাগড়ার হামিদুল হক এবং শহরের মালগুদাম এলাকার প্রান্ত সরকারকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে দামী ৫টি মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়।

 

মোবাইলের আইএমই নম্বর পরিবর্তনকারী ইঞ্জিনিয়ার মিজবাউল হকের বরাত দিয়ে ডিবির ওসি শাহ কামাল জানান, তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাসায় তিনিসহ দক্ষ লোকজনের মাধ্যমে অতি সহজেই যে কোন মোবাইলের আইএমই নম্বর পরিবর্তন করা হয়। মিজবাউল দীর্ঘদিন এ কাজ করে বিপুল সংখ্যক মোবাইলের আইএমই নম্বর পরিবর্তন করেছে।

 

ময়মনসিংহসহ আশপাশ জেলার মোবাইল চোর সিন্ডিকেট তার কাছে এসে আইএমই নম্বর পরিবর্তন করে নিচ্ছে। ফলে চোরাই মোবাইলের আইএমই নম্বর পরিবর্তন করে চোর দল আবারো তা বেপড়োয়াভাবে বাজারজাত করে আসছে। এতে ময়মনসিংহসহ আশপাশ এলাকায় মোবাইল চুরি কোনভাবেই বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছেনা।

ডাকাত গ্রেফতার

অপরদিকে বিশেষ অভিযান পরিচালনাকালে গত ৭ সেপ্টেম্বর রাতে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ সড়কের সাহেব কাচারী বাজার সংলগ্ন এলাকায় একদল ডাকাত বাস- ট্রাক ও প্রথচারীদের আটক করে বড় ধরণের ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে –  এ ধরণের খবরের প্রেক্ষিতে পুলিশ সুপারের পরামর্শক্রমে ডিবি পুলিশ তাৎক্ষনিক অভিযান পরিচালনা করে।

অভিযানে ডাকাতদলের হাবু, প্রদীপ, বাবুল কর, মিজানুর রহমান রুবেল, বকুল ও রবিনকে বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্রসহ গ্রেফতার করে।

 

অপর এক অভিযানে গফরগাও উপজেলার পাগলা থানার মুখী মাইজপাড়া এলাকা থেকে মাদক ব্যবসায়ী সুহেল ও মাহমুদ হাসান মিলনকে গ্রেফতার করে। এ সময় তাদের কাছ থেকে আধাকেজি গাজা উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ডিবি পুলিশ কোতোয়ালী মডেল ও পাগলা থানায় পৃথক তিনটি মামলা করেছে।

 

ওসি মোঃ শাহ কামালের নেতৃত্বে অভিযানে এসআই আক্রাম হোসেন, নাজিম উদ্দিন, আজিজুল হকসহ অন্যান্যরা সাথে ছিলেন।

 

ব্রিফিংকালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের আলোকে ডিবির সদ্য যোগদানকৃত ওসি শাহ কামাল বলেন, মাদক উদ্ধার ও মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারে আরো সফলতা আসবে। এ জন্য সময় দিতে হবে। তবে কোন ধরণের ম্যাকিং বা নির্দোষ কাউকে গ্রেফতার করে মাদক ব্যবসায়ী হিসাবে হয়রানী করা হবেনা। অপরাধী যত বড়ই হোক অপরাধ করে কেউ পার পাবেনা।

 

ছবিঃ লোক লোকান্তর

সর্বশেষ আপডেটঃ ৫:৪১ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ০৮, ২০১৮