|

ময়মনসিংহে নিজ বোন আর ভাগ্নিকে নিয়মিত ধর্ষণকারী প্রাইভেট টিউটর গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার:  ইন্টারনেট আর ফেইসবুকের ম্যাসেঞ্জারের সুত্র ধরে ময়মনসিংহে আরিফ নামের মানুষরূপী এক জানোয়ারের তথ্য পেয়েছে পুলিশ। পরিবারের আর্থিক অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে নিজের বোন আর ভাগ্নিকে হত্যার হুমকি দিয়ে নিয়মিত ধর্ষণ করেছে ঐ জানোয়ার। সে প্রাইভেট টিউটর হিসাবে শিক্ষকতা করে আসছে ময়মনসিংহ শহরে।

 

পুলিশের তদন্তে ঐ জানোয়ারের খবর প্রকাশ পেলে কঠিন শাস্তির দাবীতে তোলপাড় চলছে। তবে পুলিশ ফেইসবুক ম্যাসেঞ্জারকে অধিক গুরুত্ব দিয়ে আগেই ধর্ষক জানোয়ারকে গ্রেফতার করেছে। এ ঘটনায় কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলা হয়েছে। ধর্ষক আরিফ আদালতে তার দোষ স্বিকার করেছে। তার বাড়ী নেত্রকোণা জেলার খালিয়াজুড়ি উপজেলায়।

 

পুলিশ সুত্রে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, নিজের বড় বোনের সাংসারিক ও আর্থিক অবস্থা খারাপ থাকার সুযোগে প্রাইভেট টিউটর পরিচয়ধারী আরিফ নামের এক ব্যক্তি তার ভাগ্নিকে নিয়ে আসেন ময়মনসিংহ শহরে নিজের বাসায়। গত চার বছর যাবৎ ঐ শিক্ষক নামধারী আরিফ তার কিশোরী ভাগ্নিকে নিজের বাসায় রেখে নিয়মিত ধর্ষণ করে আসছে। বর্তমানে ভাগ্নির বয়স ১২ বছর বলে জানা গেছে। পুলিশী তদন্ত বলছে,  ঐ জানোয়ার আরিফ শুধু বাচ্চা মেয়েদেরই ধর্ষণ করেনি, বাচ্চা ছেলেরাও তাঁর স্বীকার হয়েছে।

 

মুখোশধারী এই জানোয়ার আরিফের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গত ১৪ আগষ্ট ময়মনসিংহ রেঞ্জ ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝির ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে একটি পোস্ট দেয় অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি। ঐ ব্যক্তির পোস্টকে গুরুত্ব দিয়ে রেঞ্জ ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি ময়মনসিংহ সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আল আমিনকে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ প্রদান করেন।

 

পরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল আমিন ব্যাপক অনুসন্ধান করতে গিয়ে খুঁজে পান আরো বিবেক বর্জিত পশুর ন্যায় জঘন্যতম ঘটনা। পুলিশের এ দায়িত্বশীল কর্মকর্তার তদন্তে প্রকাশ পায় নরপশু নিজের বোনকেও সে নিয়মিত ধর্ষণ করতো। এ কথা কাউকে না বলার জন্য বোন ও ভাগ্নিকে ভয়ভীতির মাধ্যমে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছিল। পারিবারিক নানা সমস্যা আর আর্থিক ধৈন্যদশার কারণে বোন ভাগ্নি এক পর্যায়ে জিম্মি হয়ে পড়ে। পাশপাশি নিজেদের জীবন বাচাতে বাধ্য হন। ডিআইজির নির্দেশে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তদন্তকালীন সময়ে এ নির্লজ্জ ঘটনায় ধর্ষক আরিফকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় ১৯ আগষ্ট ধর্ষক ভাইয়ের বিরুদ্ধে বোন বাদী হয়ে কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলা করেছে। যার নং ৬১ তাং ১৯/৮/২০১৮ইং। অসহায় ভাগ্নি গত ১৯ আগষ্ট তার মামার বিরুদ্ধে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে।

 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালী মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মুনসুর আহাম্মদ জানান, সোমবার ২০ আগষ্ট ধর্ষক আরিফকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। ধর্ষক আরিফ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে।

 

এদিকে ফেইসবুক ম্যাসেঞ্জারে নৈতিকতা ও সামাজিক অবক্ষয়ের এ ধরনের বিষয়ে সমাজের সকলকে সচেতন হওয়ার জন্য রেঞ্জ ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি সকলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। ময়মনসিংহবাসী এ ঘটনায় পুলিশকে সাধুবাদ জানানোর পাশাপাশি ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝির কাছে ফেইসবুবক ম্যাসেঞ্জারে বর্বরোচিত ঘটনার পোস্টটি যিনি দিয়েছেন তাকেও ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৯:৩৬ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২০, ২০১৮