|

ময়মনসিংহে ইমামের হাতে যৌন হয়রানি, ৪র্থ শ্রেনীর ছাত্রীর আত্মহত্যা

ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃ  ময়মনসিংহের ত্রিশালে এক মক্তব শিক্ষকের কাছে ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রী যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি জানার পর ওই ছাত্রীকে পরিবারের পক্ষ থেকে শাসনের ভয় দেখানোয় লোকলজ্জা আর ভয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে ওই শিক্ষার্থী। এ ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষক ও ইমাম মোবারক হোসেনকে আটক করেছে ত্রিশাল থানা পুলিশ।

 

ত্রিশাল থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার ধানীখোলা ইউনিয়নের গয়সাপাড়া কাওরানবাড়ি জামে মসজিদের ইমাম ও মক্তবের শিক্ষক উপজেলার বালিপাড়া ইউনিয়নের বাবুল মিয়ার ছেলে মোবারক হোসেন (২৮)।

 

শনিবার সকালে মক্তব ছুটির পর পানি নিয়ে মক্তবে যায় গয়সাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীর ঐ শিক্ষার্থী(১৩)। তার আসতে দেরি দেখে ঐ শিক্ষার্থীর চাচা মক্তবের ভেতরে উঁকি দিয়ে অশালীন অবস্থায় তাদের দেখেন। পরে বিষয়টি মসজিদ-মাদ্রাসার সভাপতি, মেয়ের বড় ভাইকে জানায়।

 

এসময় চাচা ঐ মেয়েকে বলে ‘আজকে তোর বাবা বাড়ীতে আসুক পরে তোর সাথে কথা আছে, পড়ে তোকে নিয়ে বসবো’। এমন কথা শুনে লোকলজ্জা আর ভয়ে সকাল ১০টার দিকে ঐ শিক্ষার্থী নিজ ঘরে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। টের পেয়ে বড় ভাই তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আসামী মোবারক হোসেনকে তার শ্বশুর বাড়ী থেকে আটক করে।

 

ঐ শিক্ষার্থীর বড় ভাই জানান, মায়ের চিৎকারে গিয়ে দেখি ঘরের দরজা বন্ধ, কোন সারা না পাওয়ায় দরজা ভেঙ্গে ঘরের ভিতর আড়ার সাথে ফাসিঁতে ঝুলছে। তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাই।

 

ত্রিশাল থানার অফিসার ইনচার্জ জাকিউর রহমান জানান, অভিযুক্তকে তার শ্বশুর বাড়ী থেকে আটক করা হয়েছে, লাশ ময়না তদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের ভাই আব্দুল কাদের জিলানী বাদী হয়ে ত্রিশাল থানায় মামলা দায়ের করেছে।

 

ছবিঃ লোক লোকান্তর

সর্বশেষ আপডেটঃ ৩:৪৮ অপরাহ্ণ | মে ০৬, ২০১৮