|

শেফালীর একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিলো, মোমেনকে ময়মনসিংহ থেকে গ্রেফতার

লোক লোকান্তরঃ   নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় গ্রেফতার দুই সন্তানের জননী শেফালী আক্তারের একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিলো বলে ধারণা করছে পুলিশ। সোমবার দুপুরে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) মনিরুল ইসলাম।

 

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ইতোমধ্যেই গ্রেফতার আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে শেফালী একাধিক পুরুষের সঙ্গে পরকীয়ায় আসক্ত ছিলেন। সম্প্রতি মোমেনের সঙ্গে তার সম্পর্ক হয়। একাধিক সম্পর্কের কারণে তাদের সম্পর্কের টানাপড়েন ঘটে।

 

হত্যার উদ্দেশে শেফালীর গলায় ওড়না চেপে ধরার আলামত পাওয়া গেছে। আরো জিজ্ঞাসাবাদের পর এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানা যাবে। এর আগে গত রোববার ভোরে দুই সন্তানের গায়ে আগুন দেওয়ার ঘটনায় প্রেমিক মোমেনকে ময়মনসিংহ থেকে গ্রেফতার করেছে আড়াইহাজার থানা ও জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ।

 

মামলার তদন্তকারী উপপরিদর্শক (এসআই) কাশেম জানান, পরকীয়া প্রেমিকা শেফালীকে ওষুধ খাইয়ে ঘুম পাড়িয়ে তার দুই সন্তানের গায়ে আগুন দেন প্রতিবেশী মোমেন। এ সময় অগ্নিদগ্ধ হয়ে হৃদয় (৯) মারা যায়। আশপাশের লোকজন আরেক সন্তান অগ্নিদগ্ধ শিহাবকে (৭) উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে স্থানান্তর করেন। তার অবস্থাও আশঙ্কাজনক।

 

এদের মধ্যে হৃদয় ৩৫ নম্বর বাড়ৈপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র। আর দগ্ধ তার ছোট ভাই জিহাদ হোসেন শিহাব (৭) একই স্কুলের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র। তাদের বাবার নাম আনোয়ার হোসেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে লিবিয়া প্রবাসী।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১১:৩৮ পূর্বাহ্ণ | এপ্রিল ২৪, ২০১৮