|

ময়মনসিংহে ছেলেকে বিলের পানিতে ঘাড় চেপে যন্ত্রণায় দিয়ে হত্যা করলো পিতা

লোক লোকান্তরঃ  ছেলেকে বাড়ির পাশে বিলে ডেকে নিয়ে যায় বাবা। তারপর বিলে নামিয়ে ছেলের ঘাড় ধরে পানির নিচে চেপে ধরে রাখে। মৃত্যুর যন্ত্রণায় ধস্তাধস্তি করতে কিশোর ছেলে। কিন্তু পাষণ্ড বাবা ছাড়েনি তাকে। দেহ নিথর হওয়ার পর পানি থেকে তুলে মৃত্যু নিশ্চিত করতে মৃত ছেলের গলায় ছুরি চালানো হয়।

 

সোমবার বিকেলে ময়মনসিংহের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম নয়ন চন্দ্র মোদকের আদালতে হাজির করলে ছেলে হত্যার কথা অকপটে স্বীকার করেন দুলাল। ২০১৭ সালের ২৭ অক্টোবর তৃতীয় স্ত্রী ও তাঁর স্বজনদের ফাঁসাতে নিজের ছেলে সংগ্রামকে হত্যা করেন নান্দাইল উপজেলার সুদ্ধাইল গ্রামের বাসিন্দা দুলাল মিয়া।

 

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই পরিমল চন্দ্র দাস জানান, মামলা তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ হত্যা রহস্য উন্মোচন করে। গত রবিবার বাবা দুলাল মিয়াকে আটক করা হয়। সোমবার আদালতে হত্যার স্বীকারোক্তি দিয়ে জবানবন্দি দিয়েছে।

 

পুলিশ জানায়, দুলাল মিয়া তিনটি বিয়ে করেছেন। এর মধ্যে প্রথম ও দ্বিতীয় স্ত্রী তাকে ছেড়ে চলে যায়। নিহত আব্দুল্লাহ সংগ্রাম (১৪) তার প্রথম স্ত্রী রেহেনার সন্তান এবং সে বাবার সাথেই থাকতো। দুলাল মিয়া ও তার তৃতীয় স্ত্রী সুখিয়া আক্তারের বনিবানা হচ্ছিল না। ছেলেকে হত্যা করে স্ত্রীকে এই মামলায় ফাঁসাতে চেয়েছিলো সে।

 

২০১৭ সালের ২৭ অক্টোবর রাতে দুলাল তাঁর ছেলে সংগ্রামকে (১৪) পাশের বিলের পানিতে চুবিয়ে পরে ছুরি মেরে হত্যা করেন। এরপর তৃতীয় স্ত্রী সুফিয়া, শ্যালক শহীদুল ও শহীদুলের ভগ্নিপতি মোকসেদকে আসামি করে নান্দাইল থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

 

মামলার পরের দিন বিল থেকে সংগ্রামের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে মামলাটি জেলা গোয়েন্দা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১২:৫১ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ১০, ২০১৮