|

ময়মনসিংহে বখাটের ছুরিকাঘাতে আহত পুলিশ কর্মকর্তা লাইফ সাপোর্টে

সাজ্জাতুল ইসলাম সাজ্জাত, গৌরীপুর:   ময়মনসিংহের গৌরীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আসাদুজ্জামান আসাদ (৩৭) স্থানীয় এক বখাটে যুবক উজ্জল মিয়ার ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হয়েছেন। বুধবার বিকেল চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তার অবস্থা এখন অবস্থা আশঙ্কাজনক। তিনি ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লাইফ সার্পোটে আছেন।

 

বুধবার (২৭ মার্চ) রাত পৌনে ১২ টার দিকে গৌরীপুর পৌর শহরের পুরাতন জেলখানা মোড়ে ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে ছুরিকাঘাত করে আহত করা হয়।

 

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ওই এলাকার শমর উদ্দিনের ছেলে অটো রিক্সা চালক উজ্জল মিয়া একজন মাদকসেবী ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক। উজ্জলের অত্যাচার ও অনৈতিক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে তার ছোট ভাই কাঞ্চন মিয়া মঙ্গলবার গৌরীপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছিলেন।

 

অভিযোগের প্রেক্ষিতে বুধবার মধ্যরাতে এস আই আসাদ উজ্জলের বাড়ী থেকে তাকে আটক করে রাস্তায় এনে মারপিট করেন। পরে স্থানীয়দের অনুরোধে উজ্জলকে ছেড়ে দেয়া হয়। পরে মটরবাইকে ঘটনাস্থল ত্যাগ করার সময় এসআই আসাদকে পিছন থেকে কোমরে উপরিভাগে ছুরিকাঘাত করে উজ্জল দৌঁড়ে পালিয়ে যায়।

 

গুরুতর রক্তাক্ত অবস্থায় এসআই আসাদকে তখন স্থানীয় লোকজন তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে প্রথমে গৌরীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে তাকে দ্রুত ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়। হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রাত দুইটার দিকে তার অস্ত্রোপাচার সম্পন্ন হয়।

জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে বর্তমানে তিনি লাইফ সাপোর্টে রয়েছেন। এঘটনার খবর শুনে তাৎক্ষনিক ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ছুটে আসেন ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি, পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম) এসএ নেওয়াজী, গৌরীপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাখের হোসেন সিদ্দিকী সহ প্রশাসনের বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তারা।

 

এদিকে কাঞ্চনের স্ত্রী সোমা আক্তার লোক লোকান্তরকে জানান, উজ্জল নিয়মিত ইয়াবা সেবন করতো। বেশকিছুদিন ধরে সে রামদা ও ছুড়া নিয়ে এলাকায় ঘুরাঘুরি করে মানুষের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করে আসছিল। বাড়ীতেও সে সকলের সাথে উৎশৃংখল আচরণ করতো। উজ্জল ব্যক্তিগত জীবনে দু’টি বিয়ে করলেও তার অত্যাচার-নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে দুই স্ত্রীই তাকে ছেড়ে চলে গেছে।

 

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন এসআই আসাদের অবস্থা আশংকাজনক। তার ওপর হামলাকারী উজ্জলকে গ্রেফতার করতে জোরালো অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে রক্তমাখা ছুরাটি উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

 

উল্লেখ্য যে, এনআই আসাদ পার্শ্ববর্তী নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার বাসিন্দা। সে গৌরীপুর থানায় দীর্ঘ ৭ মাস ধরে কর্মরত আছেন।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৯:২৫ অপরাহ্ণ | মার্চ ২৮, ২০১৮