|

ময়মনসিংহে পুলিশের টর্চের আলো ড্রাইভারের চোখে, যাত্রীবাহী বাস খাদে, নিহত ১, আহত ৪০

লোক লোকান্তরঃ  ময়মনসিংহের নান্দাইলে যাত্রীবাহী বাস থামাতে চালককে টর্চলাইট দিয়ে সংকেত দেয় টহল পুলিশ। লাইটের আলো সরাসরি বাসচালকের চোখে পড়ায় বাসের নিয়ন্ত্রণ হারান তিনি। ৪৮ যাত্রী নিয়ে বাস পড়ে যায় পুকুরে। এতে জাহাঙ্গীর নামে এক পথচারী শিশু মারা যায়, আহত হয়েছেন অন্তত ৪০ জন।নিহত জাহাঙ্গীর উপজেলার বালুয়াকান্দা গ্রামের সৈয়দ মিয়ার ছেলে।

 

রবিবার রাতে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের নান্দাইলের মুশুলী আমলীতলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

 

স্থানীয়রা জানান, রবিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে নেত্রকোনা থেকে নরসুন্দা ট্রাভেলস নামে একটি বাস ৪৮ জন যাত্রী নিয়ে চট্টগ্রাম যাচ্ছিল। ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের নান্দাইলের মুশুলী আমলীতলা এলাকায় পৌঁছালে নান্দাইল হাইওয়ে টহল পুলিশ গাড়ির চালককে বাস থামাতে টর্চলাইট দিয়ে সংকেত দেন।

 

পুলিশের টর্চ লাইটের আলো সরাসরি চালকের চোখে পড়ায় বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশের পুকুরে পড়ে যায়। এসময় বাসচাপায় এক পথচারী শিশু মারা যায় এবং কমপক্ষে ৪০ যাত্রী আহত হয়। পরে এলাকাবাসী ও কিশোরগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস বাসের আহত যাত্রীদেরকে উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

 

এসময় উত্তেজিত জনতা রাস্তায় টহলকৃত হাইওয়ে পুলিশদেরকে তাড়া করলে গাড়িসহ পালিয়ে যায় পুলিশ। ফেলে যাওয়া একটি মোটরসাইকেল আগুন ধরিয়ে দেয় স্থানীয়রা। স্থানীদের অভিযোগ হাইওয়েতে বাসে চাঁদাবাজি করতেই টহল পুলিশ বাসটি থামাতে সংকেত দেয়।

নান্দাইল হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন রহমান হাইওয়ে পুলিশের চাঁদাবাজির অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, বেপরোয়া গাড়ি চালানো, লাইসেন্স ও ফিটনেসবিহীন এবং ওভারলোড যানবাহন চেক করার জন্য চেক পোস্ট বসানো হয়েছিল।

 

নান্দাইল মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সরদার মো. ইউনুস আলী জানান, দুর্ঘটনার বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। এ ঘটনায় নান্দাইল হাইওয়ে থানার পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৯:১৩ অপরাহ্ণ | মার্চ ০৫, ২০১৮