|

শিক্ষা সফরের বাস খাদে পরে নিহত ২, আহত ৩০

লোক লোকান্তরঃ  শিক্ষা সফরের একটি বাস উল্টে খাদে পড়ে দুইজন নিহত ও অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন।
নিহতরা হলেন, জয়পুরহাট জেলার কালাই উপজেলার বাখরা গ্রামের গুলজার আলীর ছেলে লিটন হোসেন (৩৫) ও একই এলাকার ইয়াকুব আলীর ছেলে জাহিদুল ইসলাম (৪৫)।

 

দূর্ঘটনার পর আহতদের উদ্ধার করে ২৮ জনকে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ও চার জনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এদের মধ্যে দুই জনের অবস্থা আশংকাজনক বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

 

১৫ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নওগাঁ শহরের বাইপাস সড়কে তুলশীগঙ্গা সেতুর পাশে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

 

নিহতরা হলেন- কালাই উপজেলার বাখরা গ্রামের গুলজার আলীর ছেলে লিটন হোসেন (৩৫) ও একই এলাকার ইয়াকুব আলীর ছেলে জাহিদুল ইসলাম (৪৫)।

 

আহতদের মধ্যে ২৮ জনকে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ও চার জনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

নওগাঁর পুলিশ সুপার (এসপি) ইকবাল হোসেন জানান, কালাই উপজেলার মোলামগাড়ী হাট এলাকার ব্রাইট ফিউচার একাডেমির শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকসহ প্রায় ৭০ জনের একটি দল বাসে নওগাঁয় শিক্ষা সফরে আসে। নওগাঁর শখের পল্লী বিনোদন কেন্দ্র ভ্রমণ শেষে পাশের ডানা পার্কে যাচ্ছিল তারা।

 

পথে তুলশীগঙ্গা সেতুর কাছে মোড় নেওয়ার সময় রাস্তার পাশের খাদে উল্টে পড়ে যায় বাসটি। এ সময় বাসের নিচে চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই অভিভাবক লিটন ও বাবুর্চি জাহিদুল মারা যায়।

 

নওগাঁ ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনের উপ সহকারী পরিচালক এসএম মুরশেদ জানান, ঘটনার পর স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৩ টি ইউনিটের কর্মিরা উদ্ধার কাজ শুরু করে। প্রায় ১ ঘন্টা উদ্ধার চালান তারা।

 

তিনি আরো জানান, বাসের চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই শিক্ষার্থীও অভিভাবক লিটন হোসেন ও শিক্ষা সফরের বাবুর্চি জাহিদুল ইসলাম ঘটনাস্থলেই মারা যায়। এসময় শিক্ষার্থী আসিফ (৯), হেলাল (৭) রাহুল (১১) লিমা (১৩), আরসিনা (১৪), তোরিকুল (১০) সাদিয়া (১৩), আসিক (১০), রিয়া (১০), তামান্না (১০), রাজিবুল (১৫), তুষার (৭), মৃদৃল (১১) ও অভিভাবকদের মধ্যে মজিদা (৪০) মোশারফ (৪৫), ফাতেমা (৫০),তপন (৪০), বেলাল (২৬), আনজুয়ারা (৩০), শহীদুল (৪০), মাহফুজুল (৩২), শারমিন (২২), দেলোয়ার (৫০), শামেকা (২২), রাহান (২০) সহ অন্তত ৪০ জন আহত হোন।

 

এদিকে ঘটনার পরপরই নওগাঁ সদর আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা ও নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগর সভাপতি মো: আব্দুল মালেক, জেলা প্রশাসক মো: মিজানুর রহমান, পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন ঘটনাস্থলে ছুটে যান। তারা দূর্ঘটনা কবলিতদের খোঁজ খবর নেন ও চিকিৎসাসহ অন্যান্য ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশনা প্রদান করেন।

 

 

সর্বশেষ আপডেটঃ ১০:৪৫ পূর্বাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০১৮