|

ধর্ষিতার চরিত্রে ‘বড় ছেলে’র মেহজাবিন

লোক লোকান্তর: গেল কোরবানীর ঈদে ‘বড় ছেলে’ নাটকে জিয়াউল ফারুক অপুর্বর বিপরীতে অভিনয় করে মাত করেছিলেন ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী মেহজাবিন চৌধুরী।

 

প্রায় মাসখানেক ধরে ইউটিউব কাঁপিয়েছে মেহজাবিন অভিনীত ওই নাটক। এবার তিনি পর্দায় হাজির হচ্ছেন একজন ধর্ষিতা নারীর চরিত্রে।

 

নাটকের গল্পে দেখা যাবে, বিয়ের আগেই ধর্ষণের শিকার হন মেহজাবিন। এমন অনাকাঙ্ক্ষিত অঘটনে থমকে যায় তার জীবন। বিয়ের সানাইয়ের সুর নয়, প্রবল হতাশা আর আত্মহননের পথ গ্রাস করে ফেলে তাকে।

 

তার পরও প্রচণ্ড আত্মবিশ্বাস নিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে চান মেহজাবিন। বিয়ের পিঁড়িতে বসার আগে ধর্ষণের মতো ঘটনা ভুলে নতুন জীবনের স্বপ্নে পা বাড়ান। এমন সময় মেহজাবিনের সহপাঠী সুষমা তার দিকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন।

 

ঘটনাক্রমে তার সাথে পরিচয় হয় সুষমার পূর্বপরিচিত সজলের সঙ্গে। ভয়াল অতীতকে পেছনে ফেলে আগামীকে সুন্দর করে সাজানোর জন্য মেহজাবিনকে সঙ্গী হিসেবে পেতে চান সজল।

 

কিন্তু মেহজাবিনের জীবনে ঘটে যাওয়া সেই অনাকাঙ্ক্ষিত অঘটনের কথা জানার পর সজল কি মেহজাবিনের পাশে থাকবেন? এমন গল্পে নির্মিত হয়েছে নাটক ‘অনামিকার নীল উপাধ্যায়’।

 

ব্যতিক্রমী গল্প আর চমৎকার ভাবনায় নাটকটি রচনা ও পরিচালনা করেছেন ড. তৌফিক এলাহী। এতে মেহজাবিন, সজল, সুষমা সরকার ছাড়াও অভিনয় করেছেন শেলি আহসান, খালেকুজ্জামান, নিকুল কুমার প্রমুখ। শিগগির নাটকটি একটি বেসরকারি টেলিভিশনে প্রচারিত হবে বলে জানা গেছে।

 

নির্মাতা ড. তৌফিক এলাহী সকল ধর্ষিতা নারীদের উৎসর্গ করে নাটকটি নির্মাণ করেছেন। তার ভাষ্য, ‘হরহামেশাই দেখা যায় ধর্ষণের শিকার মফস্বলের মেয়েরা লজ্জায় অপমানে আত্মহত্যার পথে বেছে নেয়। ধর্ষণ একটি নারী নির্যাতিন এবং নির্যাতনকারীদের বিচারের জন্য কঠোর আইন আছে। আত্মহত্যায় অনুৎসাহিত করে নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিতের লক্ষে নির্মাণ করা হয়েছে ‘অনামিকার নীল উপাধ্যায়’।

 

২০০৯ সালে লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার থেকে বিজয়ী হয়ে মিডিয়া জগতে পা রাখেন মেহজাবিন চৌধুরী। তার অভিনীত প্রথম নাটক ছিল ইফতেখার আহমেদ ফাহমি পরিচালিত ‘তুমি থাকো সিন্ধুপারে। কিন্তু গত ঈদে প্রচারিত ‘বড় ছেলে’ নাটক তাকে সবচেয়ে বেশি সাফল্য ও পরিচিতি এনে দেয়। বর্তমানে তিনি বিভিন্ন টিভি বিজ্ঞাপন ও নাটকে নিয়মিত অভিনয় করছেন।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ৮:৩৭ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ২৬, ২০১৭