|

ময়মনসিংহের নান্দাইলে দুই পক্ষের সংঘর্ষে পুলিশ কর্মকর্তাসহ আহত ৭

লোক লোকান্তর : ময়মনসিংহের নান্দাইলে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে পুলিশের এক এসআইসহ সাতজন আহত হয়েছেন। গুরুতর আহতদের ময়মনসিংহ হাসপতালে ভর্তি ও স্থানীয় নান্দাইল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয় বলে জানা গেছে।

 

সোমবার সকাল ১০টার দিকে নান্দাইল শহীদ স্মৃতি আদর্শ ডিগ্রি কলেজের সামনে এ সংঘর্ষ হয়। উত্তেজনাকর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ এ সময় চার রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে। তবে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েনে বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

 

স্থানীয়রা জানায়, নান্দাইল শহীদ স্মৃতি কলেজে ২০ অক্টোবর নবীণবরণ অনুষ্ঠান ও কনসার্ট করার জন্য চাঁদা তোলা শুরু হলে এতে বাঁধা দেয় পৌর ছাত্রলীগের কর্মীরা। বিষয়টি নিয়ে রবিবার কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মিঠুর সাথে প্রতিপক্ষের হাতাহাতি হয়। পরে এ থেকে দুই পক্ষের সংঘর্ষের সূত্রপাত হলে কলেজ ছাত্রলীগ নেতা মিঠু, জহিরুল, টিটু দে, এরশাদ এবং পৌর ছাত্রলীগ গ্রুপের আবু হানিফ আহত হন।

 

পরে তাদের নান্দাইল উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। এরশাদের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে পাঠানো হয়েছে। সংঘর্ষের সময় দায়িত্ব পালনকালে নান্দাইল মডেল থানার এসআই নুরুল হুদা, সাংবাদিক আলম ফরাজী আহত হলে তাদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়।

 

অপর একটি সূত্রে জানা গেছে, কলেজ ছাত্রলীগের সাথে পৌর ছাত্রলীগের ওই কলেজের কমনরুমে বসাকে কেন্দ্র করে পূর্ব থেকেই বিরোধ চলছিল। নবীণবরণ অনুষ্ঠান কনসার্টের জন্য চাঁদা তোলা এবং কলেজের কমনরুমে বসা এসব বিষয়ের জের ধরে সোমবার সকালে কলেজ ছাত্রলীগ ও পৌর ছাত্রলীগ কলেজের সামনের এলাকায় সংঘর্ষে জড়ায়।

 

নান্দাইল শহীদ স্মৃতি আদর্শ কলেজের উপাধ্যক্ষ বাদল কুমার দত্ত এ ব্যাপারে বলেন, কলেজের কমনরুমে বসাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে জড়ায় দুই পক্ষ। তবে কলেজে অনুষ্ঠানের নামে চাঁদা তোলার অনুমতি তারা কাউকে দেননি বলে তিনি জানান।

 

নান্দাইল মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ইউনুস আলী বলেন, কলেজের কমনরুমে বসাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়ালে এক পুলিশ সদস্যসহ কয়েকজন আহত হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চার রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করা হয়।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৯:১৪ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ০৯, ২০১৭