|

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় ডিগ্রীর ১২৮জন শিক্ষার্থীর উপবৃত্তি অনিশ্চিত

ফুলবাড়িয়া প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া বিভিন্ন ডিগ্রী কলেজ ও সমমান পর্যায়ের মাদ্রাসার ১২৮জন শিক্ষার্থীর উপবৃত্তি অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এর মধ্যে উপজেলা সদরের ফুলবাড়িয়া কলেজ (অনার্স কলেজ) এর ৫৬জন শিক্ষার্থী রয়েছে। এসব শিক্ষার্থীরা তাদের দাবী আদায়ে গতকাল রবিবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে গিয়ে তাঁকে না পেয়ে ফিরে আসে।

 

জানা যায়, শিক্ষার্থীদের হয়রানি ও দুর্ভোগ লাঘবের জন্যে সরকার ডাচবাংলা মোবাইল একাউন্টের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি কার্যক্রম চালু করে। কিন্তু সেই কার্যক্রমে হয়রানি আরও বেশি হচ্ছে বলে দাবী করেছেন অনেক প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ। উপবৃত্তি সংক্রান্ত ২টি প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়হীনতা স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ছাত্র-ছাত্রীদের একাউন্ট করে ডাচবাংলা মোবাইল ব্যাংকিং কর্তৃপক্ষ।

 

আর একাউন্টে টাকা ছাড় করার দায়িত্ব মাউশি’র। প্রতি বছর কয়জন শিক্ষার্থী উপবৃত্তি পাচ্ছে আর ক’জন পাচ্ছে না তার কোন সঠিক হিসাব মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস বা সংশ্লিষ্ট কলেজ বা মাদ্রাসার অফিসে পাওয়া যায়নি। এর ফলে চিহিৃত করা যাচ্ছে না কারা উপবৃত্তি পাচ্ছে আর কারা পাচ্ছে না। ছাত্র-ছাত্রীরা কার কাছে গেলে তাদের অধিকার ফিরে পাবে তাও তারা জানে না। প্রতিষ্ঠানের অফিস, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস, ইউএনও অফিসে অনুমান করে দ্বারস্থ হচ্ছে উঠতি বয়সের এসব যুবক-যুবতিরা।

 

উপবৃত্তি না পাওয়া শিক্ষার্থীদের চিহিৃত করে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস প্রতিষ্ঠান ভিত্তিক তালিকা ৮/১২/২০১৬ তারিখের ৬৯২নং স্মারক প্রথমবার ০৮/০৬/২০১৭ তারিখের ৯৮০নং স্মারক দ্বিতীয় বার চিঠি প্রদান করে কিন্তু তাতে কোন সাড়া পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
উপবৃত্তি থেকে বাদ পড়া শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দায়িত্ব অবহেলার মাশুল আমরা দিবো না। সরকারী অনুদান গরিব শিক্ষার্থীদের খুব কাজে লাগে বলে তারা তাদের অধিকার ফিরে পেতে সোচ্চার।
এ ব্যাপারে ডাচবাংলা মোবাইল ব্যাংকিং কর্তৃপক্ষের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার লীরা তরফদার জানান, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে উপবৃত্তি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করার ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ৭:২৪ অপরাহ্ণ | জুলাই ১৬, ২০১৭