|

সর্বশেষ

ইতিহাস গড়তে পারলো না বাংলাদেশ

লোক লোকান্তরঃ   বাংলাদেশ ইতিহাস গড়তে পারলো না। উপমহাদেশীয় দলগুলোর মধ্যে এর আগে কেবল পাকিস্তানই টানা সাতটি সিরিজ জিততে পেরেছিল। সেই হাতছানিটা ছিল বাংলাদেশের সামনেও। হতে পারতো ইতিহাস কিন্তু তা পারলো না বাংলাদেশ। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সিরিজ নির্ধারণী ওয়ানডেতে ইংল্যান্ডের কাছে চার উইকেটে হারলো মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। ফলে, ২-১ ব্যবধানে সিরিজ নিজেদের করে নেয় ইংল্যান্ড।

 

বাংলাদেশের ২৭৭ রানের জবাবে বুধবার ১৩ বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় জশ বাটলারের দল। ইংলিশদের হয়ে বেন ডাকেট ৬৩ ও স্যাম বিলিংস ৬২ রান করেন। এছাড়া বেন স্টোকস ৪৬ রানে অপরাজিত থাকেন।  দুই পেসার মাশরাফি ও শফিউল দুটি করে উইকেট নেন। আদিল রশিদ হন ম্যাচ সেরা খেলায়াড়। আর বেন স্টোকস পেয়েছেন সিরিজ সেরার খেতাব।

 

এদিন সিরিজে টানা তৃতীয়বারের মত টস হারেন মাশরাফি। টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং নেওয়া ইংল্যান্ডের ‍শুরুটা ভাল হয়নি। বাংলাদেশের ‍দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েস মিলেই তুলে ফেলেন ৮০ রান। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এটাই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রানের ওপেনিং জুটি।

 

যথাক্রমে ৪৫ ও ৪৬ রান করে তামিম ও ইমরুল বিদায় নেন। তিন নম্বরে নামা সাব্বির রহমান রুম্মানও আউট হন ৪০-এর ঘরে। হাফ সেঞ্চুরি থেকে এক রান দূরে থাকতে তাকে সাজঘরে ফেরান আদিল রশিদ। এই আদিল রশিদকেই মোট চারজন বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান উইকেট ‘উপহার’ দিয়ে এসেছেন।

 

৩০ থেকে ৪০ ওভারের মধ্যে বাংলাদেশ তিনটি উইকেট হারায়। এই সময়ে করতে পারে মোটে ৪০ রান। সপ্তম উইকেট জুটিতে মুশফিকুর রহিম আর মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের ৮৫ রানের জুটিতে সফরকারী ইংল্যান্ডের সামনে ২৭৮ রানের লক্ষ্য দেয় বাংলাদেশ। মুশফিক ৬২ বলে ৬৭ রানের অপরাজিত এক ইনিংস খেলেন। এছাড়া ৩৮ রানে অপরাজিত থাকেন মোসাদ্দেক।

 

এই একই ভেন্যুতেই দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথমটি শুরু হবে আগামী ২০ অক্টোবর। এর আগে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) একাদশের বিপক্ষে দু’টি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে সফরকারীরা।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ১১:৪৩ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ১২, ২০১৬