|

গফরগাঁও-ময়মনসিংহ রুটে ট্রেনের ছাদ ফেলে হত্যা চেষ্টা, অজ্ঞাত দুই ব্যাক্তি বাক ও স্মৃতি ভ্রষ্ট

gafargaon-pic-04-10-2016

আজহারুল হক, গফরগাঁওঃ  গফরগাঁও-ময়মনসিংহ রেলপথে দূর্বৃত্তদের তান্ডব যেন থামছেই না। দূর্বৃত্তরা ট্রেনের ছাদে ভ্রমনকারী যাত্রীদের সর্বস্ব লুটে নিয়ে ছাদ থেকে ফেলে দিচ্ছে নিচে। এতে করে কেউ নিহত হচ্ছেন কেউবা আবার চিরতরে পঙ্গু হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। ট্রেনের ছাদ থেকে ফেলে দেয়ার ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে গত ১৬ দিন ধরে এক বৃদ্ধ ও ৫ দিন যাবত আরেক যুবক গফরগাঁও হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। ভর্তিকৃত দুজনেই বাক ও স্মৃতি শক্তি হারিয়ে ফেলেছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, ট্রেনের ছাদ থেকে ফেলে দেয়ার পর গুরতর আহত ৬০ বছরের এক বৃদ্ধকে গফরগাঁও রেলস্টেশন এলাকার লোকজন গত ১৬ দিন পূর্বে এবং গত ৫ দিন পূর্বে একই ঘটনায় গুরুতর আহত ২২ বছরের আরেক যুবককে হাসপাতালে ভর্তি করে দেন। এর পর থেকে তারা দুজন এখানে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, একজন ওয়ার্ডের মেঝেতে অপরজন বেডে অচেতন হয়ে পড়ে রয়েছেন। দীর্ঘক্ষন ডাকা ডাকি করেও তাদের সারা পাওয়া যায়নি। ওই ওয়ার্ডে ভর্তিরত অন্য রোগী ও তাদের স্বজনরা জানান, দুজনেই উঠতে ও বসতে পারেন না। সারাক্ষণ অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকেন। এখনো পর্যন্ত কেউ তাঁদের খোঁজ নিতে আসেনি। ডাক্তার ও নার্সরা মাঝে মাঝে এসে মুখে খাবার তুলে দিচ্ছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ঢাকা থেকে বাড়ি ফেরার পথে একটি আন্তঃনগর ট্রেনের ছাদ থেকে গফরগাঁও রেলস্টেশন থেকে ৪ কিলোমিটার দূরে দূর্বৃত্তরা সর্বস্ব ছিনিয়ে নিয়ে নিচে ফেলে দেয়। তবে কোন ট্রেন তাদেরকে ফেলে দেওয়া হয়েছে তা জানা যায়নি।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আলম আরা বেগম জানান, বৃদ্ধ লোকটি গত ১৬ দিন ধরে এবং যুবকটি ৬দিন যাবত এখানে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ভর্তির সময়ে দুজনেই গুরুতর আহত ছিল। এখন কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠলেও দুজনেই স্মৃতি শক্তি হারিয়ে ফেলেছে। আশা করছি দ্রুততম সময়ের মধ্যে ওরা সুস্থ সম্পুন্ন সুস্থ হয়ে উঠবে। চেষ্টা করেও এদের ঠিকানা সংগ্রহ করা যায়নি। তবে বৃদ্ধ লোকটি একটু একটু কথা বলার চেষ্টা করেন। বৃদ্ধ তার নাম নূরুল ইসলাম, বাড়ি জামালপুর বলে জানিয়েছেন।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ২:৩৪ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ০৪, ২০১৬