|

নেত্রকোনায় শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রকল্পের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

নেত্রকোনা প্রতিনিধি ঃ জেলার পূর্বযালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আবুল কাসেমের বির্বদ্ধে ভুয়া প্রকল্প দেখিয়ে বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন করে কাজ না করেই গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণা বেক্ষনের (টিআর) কর্মসূচির অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. সাইদুল ইসলাম ময়মনসিংহ দুর্নীতি দমন কমিশনের উপ পরিচালক বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
জানা গেছে, গত ২০১৪-২০১৫ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাধলার পাটরা দামপাড়া উচ্চ বিদ্ঠামো রক্ষনাবেক্ষন কর্মসূচির আওতায় দ্বিতীয় পর্যায়ে বিভাগীয় কমিশনারের মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের অনূকুলে জেলার পূর্বধলার পাটরা দামপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে লেট্রিন নির্মাণের জন্য বিশেষ বরাদ্ধে ৫ মেট্টিক টন গম বরাদ্ধ দেয়া হয়। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আবুল কাসেম নিজেই প্রকল্প কমিটির সভাপতি সেজে পাটরা দৰিনপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় নাম দিয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও সদস্যদের না জানিয়ে প্রকল্পের নামে প্রায় ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা কাজ না করেই আত্মসাৎ করেন। ওই নামে কোন উচ্চ বিদ্যালয় নেই। বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে স’ানীয় একটি মহল ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টায় তৎপর হয়ে উঠে। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. সাইদুল ইসলাম তদন্ত করে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য মঙ্গলবার দুর্নীতি দমন কমিশন ময়মনসিংহ বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
পাটরা দামপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আবুল কাসেম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, প্রকল্প থেকে যে টাকা পাওয়া গেছে- তা দিয়ে পুরাতন লেট্টিন সংস্কার করা হয়েছে। সভাপতি ও কয়েকজন সদস্য মিলে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যে অভিযোগ তুলেছেন। কমিটির লোকজন চেয়েছিল প্রকল্পের টাকা ভাগাভাগি করার জন্য, আমি রাজি না হওয়ায় তারা এ অভিযোগ করছে।
দুর্নীতি দমন কমিশন ময়মনসিংহের উপ পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে এ প্রতিনিধিকে বলেন, বিষয়টি যাছাই বাছাই করে দেখা হচ্ছে।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ৭:৫৭ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ০৬, ২০১৬