|

মমেকহাকে আদর্শ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলা সম্ভব, প্রয়োজন সদিচ্ছা ও আন্তরিকতা – পরিচালক, মমেকহা

Picture 009

স্টাফ রিপোর্টার | ৩১ আগস্ট ২০১৬, বুধবার
ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (মমেকহা)’র সেবার মানোন্নয়নের লৰ্যে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), ময়মনসিংহ সদর এবং ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপৰের যৌথ উদ্যোগে আজ ৩১ আগস্ট ২০১৬ তারিখ দুপুর ১২:৩০ মিনিটে উক্ত হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো: নাছির উদ্দীন আহম্মেদ এর সভাপতিত্বে তাঁর কৰে এক মতবিনিয় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সনাক এর পৰ থেকে গত ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভার কার্যবিবরণী উপস’াপন করা হয় এবং গৃহীত সিদ্ধান্তগুলোর অগ্রগতি পর্যালোচনা করা হয়। এ সময় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক গৃহীত উদ্যোগগুলো এবং ইতিবাচক পরিবর্তনের ৰেত্রগুলো তুলে ধরেন। পাশাপাশি তিনি বর্তমানে নানা প্রতিকূলতা ও সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও তাঁর স্বদিচ্ছার কথা কথা উলেৱখ করেন। এ সময় পূর্বের সভার সিদ্ধান্ত ও সনাক-টিআইবি’র প্রত্যাশা হাসপাতালের সেবা সম্পর্কিত তথ্যের অবাধ প্রবাহ নিশ্চিতকরণ, সচেতনতা বৃদ্ধিমূূলক উদ্যোগ, সিটিজেন চার্টার স’াপন, খাবার মানোন্নয়ন, নিরাপত্তা, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা, নারী সেবাগ্রহীতাদের জন্য উদ্যোগ, ঔষধ সরবরাহ, বিভিন্ন ডায়াগনোসিস টেস্ট, মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভদের নিয়ন্ত্রণ, দালালদের দৌড়ান্ত দূরীকরণ, অভিযোগ বক্স স’াপন, দুর্নীতির বির্বদ্ধে ব্যবস’া গ্রহণ, সেবা প্রদানকারী সংশিৱষ্টদের আইডি কার্ডের ব্যবহার, জর্বরি সেবা নিশ্চিতকরণসহ নানামুখী ইতিবাচক প্রচেষ্টার কথা উলেৱখ করেন। তিনি আরো বলেন, এখনো আরো অনেক উন্নয়নের সুযোগ ও স্বপ্ন আমার আছে এ জন্য প্রয়োজন আমার সকল ডাক্তার, নার্সসহ সকল সহকর্মী ও ময়মনসিংহের নাগরিক বিশেষকরে সচেতন মহলের সার্বিক সহযোগিতা। সৰমতার প্রায় তিনগুন বেশি রোগী এ হাসপাতাল থেকে সেবা নিতে আসে। এ ৰেত্রে অনেক সময় চাইলেও পর্যাপ্ত গুনগতমান বজায় রেখে সেবাদান সম্ভব হয় না। হাসপাতালের অবকাঠামো উন্নয়নে পি.ডবিৱউ. ডি’র সংশিৱষ্ট বিভাগের সাথে কঙ্খিত সহযোগিতা না পাওয়ায় সেবাদানে বিভিন্নমুখী চ্যালেঞ্জ এর সম্মখিন হতে হয়। এছাড়াও বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের অনুপসি’তি, স্বার্থন্বেশী মহলের প্রতিনিয়ত চাপ ও প্রভাব হাসপাতালের উন্নয়নে বাধাগ্রস্ত করছে। পরিচালক ক্যান্সার রোগীদের চিকিৎসা যথাযথভাবে প্রদানে হাসপাতালের সীমাবদ্ধতার কথা উলেৱখ করে সামর্থ্যবান ব্যক্তিদের কাছে অনুদান বা যাকাতের অর্থ মানব সেবার লৰ্যে হাসপাতালে প্রদানেরও আহ্বান জানান। আর দুর্নীতি ও অনিয়মের বির্বদ্ধে জোরদার পদৰেপ গ্রহণে তার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার আশ্বাস দেন।

সভায় সনাক-টিআইবি’র পৰ থেকে নাগরিক সম্পৃক্ততার মাধ্যমে স্বচ্ছতা নিশ্চিতকরণের সেবার পাশাপাশি জনসচেতনতা, প্রত্যাশা পূরণ ও নাগরিকদের ভূমিকা রাখার স্বার্থে বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের সাথে মতবিনিময় সভার আহ্বান জানানো হয় এবং বিষয়টি কর্তৃপৰ ইতিবাচকভাবে গ্রহণ করেন। একই সাথে আরো ইতিমধ্যে হাসপাতালের সেবার মানোন্নয়নে ইতিবাচক পরিবর্তনে গৃহীত বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণের জন্য কর্তৃপৰকে ধন্যবাদ জানায় এবং সনাক-টিআইবি’র পৰ থেকে সম্ভব আরো সক্রিয়ভাবে সকল সহযোগিতা অব্যাহত রাখার প্রত্যাশা ব্যক্ত করা হয়।

সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপসি’ত ছিলেন, সহকারি পরিচলক (অর্থ) ডাঃ লৰ্নী নারায়ণ মজুমদার, ডাঃ তারিকুল ইসলাম খান ওয়াসিম, বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ ছাড়াও সনাক সভাপতি শরীফুজ্জামান পরাগ, সহ-সভাপতি মীর গোলাম মোস্তফা ও মর্জিয়া বেগম এবং টিআইবি’র প্রতিনিধিবৃন্দ।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ৭:১২ অপরাহ্ণ | আগস্ট ৩১, ২০১৬