|

মুক্তাগাছায় জোর পূর্বক মসজিদের ওয়াক্‌ফ জমি দখল, গাছপালা বিনষ্ট

মুক্তাগাছা প্রতিনিধিঃ মুক্তাগাছা উপজেলার কাশিমপুর গ্রামে কুখ্যাত রাজাকার কমান্ডার আঃ মান্নান তালুকদার ৭১ সালে কাশিমপুর ইউনিয়ন সহ থানার বিভিন্ন এলাকায় হত্যা, ধর্ষন, লুণ্ঠন অগ্নিসংযোগ সহ ব্যাপক ধ্বংস জজ্ঞ চালায় । এবার তারই গুনধর পুত্র শামছুদ্দোহা তালুকদার জালিয়াতী ও প্রতারনা করে মসজিদের মতোয়াল্লী হয়ে মসজিদের জমিতে রোপিত একহাজার চারাগাছ, সবজি বাগান ধ্বংস করে এবং পুকুরের মাছ অবমুক্ত করে ব্যাপক ক্ষতিসাধন করে। তাদের প্রতিপক্ষ প্রকৃত ওয়াক্‌ফ দানকারী ওয়ারিশদের নামে থানায় মিথ্যা অভিযোগ করে।
বিবরণে জানাযায়, ময়মনসিংহ জেলার মুক্তাগাছা উপজেলার কাশিমপুর ইউনিয়নের মৌলভি আবুল হোসেন ওয়াক্‌ফ এস্টেট যার ইসি নং- ১০৬২৯। মৌলভী আবুল হোসেন তালুকদার কাশেমপুর মৌজার সিএস /আরওআর দাগ নং- ৩৩২ ও ৩৭৭ দাগে ৩.৩৯ একর জমি মসজিদের নামে ১৯৪৪ সালে ওয়াক্‌ফ করে দেন । ওয়াক্‌ফ দলিলে উল্লেখ আছে, তার মৃত্যুর পর তার বৈধ ওয়ারিশগণ মতোয়াল্লী হিসাবে দায়িত্ব পালন করবেন। মৌলভী আবুল হোসেন তালুকদার মারা যাওয়ার পর মুক্তাগাছার কুখ্যাত রাজাকার কাশিমপুরের আঃ মান্নান তালুকদার অবৈধভাবে প্রভাব খাটিয়ে মতোয়াল্লী হন। মৌলভী আবুল হোসেনের নাবালক ওয়ারিশগণ তাদের ভয়ে এলাকা ছেলে অন্যত্র চলে যেতে বাধ্য হয়। স’ানীয় লোকজনও তাদের ভয়ে কথা বলতে সাহস পেত না। আঃ মান্নান তালুকদার মারা যাওয়ার পর দীর্ঘদিন এই ওয়াক্‌ফ এস্টেটটি অভিভাবকহীন অবস’ায় ছিল। মৌলভী আবুল হোসেনের ওয়ারিশগণ মতোয়াল্লী হওয়ার জন্য বৈধ কাগজপত্র জমা দেন কিন’ ময়মনসিংহ ওয়াকফ পরিদর্শক মোটা টাকার বিনিময়ে সেই ৭১ এর কুখ্যাত ঘাতক রাজাকারের পুত্র শামছুদ্দোহা তালুকদারকে বৈধ কাগজপত্র না থাকা সত্বেও তার পক্ষে মতোয়াল্লী দেওয়ার জন্য সুপারিশ করেন। এদিকে মৌলভী আবুল হোসেন তালুকদারের বৈধ ওয়ারিশ আজাহার তালুকদার ওয়াক্‌ফ দলিলের বিধান অনুযায়ী ৩০/০৩/১৬ ইং তারিখ ওয়াক্‌ফ প্রশাসন বরাবর আবেদন করে এবং বৈধ ওয়ারিশগণ মসজিদের জমিতে ১ হাজার ইউক্লেপটাস গাছ, পুকুরে মাছ এবং অন্যান্য সবজি চাষাবাদ করেন। গত ১৯/০৮/১৬ বিকালে শামছুদ্দোহা তালুকদারের নেতৃত্বে ৫০/৬০ জনের একটি ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী গ্রুপ নিয়ে অবৈধ ভাবে এস্টেটে প্রবেশ করে সমস- গাছাপালা ওপড়ে ফেলে ধ্বংস করে। পরে সে নিজেই বাদী হয়ে বৈধ ওয়ারিশ আজাহার তালুকদার গংদের বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করে। এদিকে আজাহার গংরা গতকাল শনিবার শামছুদ্দোহা তালুকদারগংদের বিরুদ্ধে আরেকটি অভিযোগ দায়ের করে। উল্লেখ্য, শামছুদ্দোহা তালুকদারের পিতা রাজাকার কমান্ডার আঃ মান্নান ৭১ সময়কার জগন্য ও নিসংশ হত্যাযজ্ঞের নায়ক। এলাকায় প্রচার আছে তার নির্দেশে ঘোগা ইউনিয়নের জহর সরকারের বাড়ী, ৮নং দাঁওগা ইউনিয়নের পাহাড় পাবইজান গ্রামে হিন্দু বাড়ীতে আগুন, কাঁঠালিয়া গ্রামে হিন্দু বাড়ীতে আগুন, এক হিন্দু অন-সত্তা মহিলাকে গুলি করে হত্যা সহ অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে এ যুদ্ধাপরাধীর বিরুদ্ধে। তারই পুত্র এবার মসজিদের সম্পত্তি দখল করতে মাঠে নেমে এলাকার তাসের রাজত্ব কায়েম করছে। এলাকাবাসীর দাবী রাজাকার পুত্র সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে তদন- পূর্বক আইনানুগ ব্যবস’া গ্রহণ করা হোক।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ৬:৫৫ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২০, ২০১৬