|

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় দিবস বৃহস্পতিবার

 

শাহীন সরদার, বাকৃবি প্রতিনিধি
বাংলাদেশ কৃষিপ্রধান দেশ। এ দেশের কৃষ্টি, সংস্কৃতি, অর্থনীতির মূল ভিত্তিই হ”েছ কৃষি। দেশের মানুষের খাদ্য চাহিদা পূরণ ও দেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করার লৰ্যে ১৯৬১ সালের ১৮ আগস্ট প্রতিষ্ঠিত হয় দৰিণ-পূর্ব এশিয়ার উ”চতর কৃষি শিৰা ও গবেষণার অন্যতম বিদ্যাপীঠ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি)। বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ঐতিহ্যও ৫৫বছর পেরিয়ে ৫৬ বছরে পদার্পণ করবে।
প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ১৮ আগস্ট সূর্যদয়ের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করবে পরে সারাদিনব্যাপি নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকি পালন করা হবে । এ উপলৰে বর্ণাঢ্য র‌্যালি, বৃক্ষরোপণ ও চারা বিতরণ এবং মাছের পোনা অবমুক্তকরণসহ নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। প্রতিষ্ঠা দিবস সম্পর্কে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর বলেন, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের জনসংখ্যা ছিল প্রায় সাড়ে ৭ কোটি। তখন প্রতি বছর দেশে ছিল প্রচন্ড খাদ্যাভাব। ৰুধা দুর্ভিৰে মারা গেছে অসংখ্য মানুষ। ২০১৬ তে জনসংখ্যা ১৬ কোটির কোঁঠায় পৌঁছেছে। বহুগুণে কমেছে আবাদী কৃষি জমির পরিমাণও। তারপরও বাংলাদেশ খাদ্যে প্রায় স্বয়ংসম্পূর্ণ। আর এ সাফল্যে সবচেয়ে বড় অবদান রেখেছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। বাউকুল, শুকানো পদ্ধতিতে বোরো ধান চাষ, একায়াপনিক্স এর মাধ্যমে মাছ এবং সবজি উৎপাদন, তারাবাইম, গুচিবাইম ও বাটা মাছের কৃত্রিম প্রজননসহ বহু গবেষণায় রয়েছে বাকৃবির সাফল্য।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ১০:৩৬ অপরাহ্ণ | আগস্ট ১৭, ২০১৬