|

সর্বশেষ

শোলাকিয়া হামলা মামলার আসামী বন্দুক যুদ্ধে নিহত শফিউলের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর ঃ ৩ টি মামলা দায়ের

 

স্টাফ রিপোর্টার | ৬ আগস্ট ২০১৬, শনিবার
ময়মনসিংহের নান্দাইলে র‌্যাবের সাথে বন্দুক যুদ্ধে নিহত শফিউল ইসলামের লাশ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ। পরিবার পক্ষে তার মা নাগিস সুলতানা শিউলি লাশ গ্রহণ করেন। এসময় তিনি কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। তার লাশ দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাট উপজেলার দক্ষিণ দেবীপুর উত্তর পাড়ায় নিজ বাড়ীতে নিয়ে যাওয়া হবে বলে পরিবার সুত্রে জানা যায়।
শফিউলের মা সাংবাদিকদের বলেন, কোন মা চায় না তার সন্তান জঙ্গি হোক, তার সন্তান কাউকে হত্যা করুক, মায়ের বুক খালি হোক কোন মা তা চায় না। তিনি বলেন, ওরাতো ছোট মানুষ ওদের কি তেমন বুদ্ধি আছে, ছোট বাচ্চাদের যা শেখানো যায় তাই শেখে। পরিবারের পক্ষ থেকে যা শেখানো যায় তাই শেখে, যখন স্কুলে যায় শিক্ষকরা যা শেখায় তাই শেখে আর যদি খারাপ সংগে যায় তখন খারাপ কিছু শেখে। শফিউলকে যারা জঙ্গি তৈরী করেছেন তাদের বিচার দাবি করেন তিনি।
পুলিশ জানায়, গত বুহস্পতিবার রাত এগারোটার দিকে র‌্যাবের সাথে বন্দুক যুদ্ধে শফিউরসহ দুই জঙ্গি নিহত হন। ঈদের দিন কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় হামলার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ঘটনাস’ল থেকে তাকে আহতবস’ায় আটক করা হয়। পরে তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। ব্যাব-১৪ সদস্যরা হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে পুলিশ হত্যা মামলায় কিশোরগঞ্জ থানায় সোপর্দ করতে শফিউলকে কিশোরগঞ্জে নিয়ে যাওয়ার পথে সহযোগিরা তাকে ছিেিনয়ে নেয়ার সময় বন্ধুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটে।
এদিকে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনায় র‌্যাব বাদী হয়ে নান্দাইল থানায় তিনটি মামলা দায়ের করেন। ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার চন্ডিপাশা ইউনিয়নের ডাংরী ঘোষপালা এলাকায় গত বৃহস্পতিবার রাতে র‌্যাবের সাথে সংগঠিত বন্দুক যুদ্ধের ঘটনায় শনিবার (৬ আগষ্ট) নান্দাইল মডেল থানায় র‌্যাবের পৰ থেকে পৃথক পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। র‌্যাব-১৪ ময়মনসিংহের সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার ডি এ ডি মোঃ দেলোয়ার হোসেন বাদী হয়ে বিস্ফোরক আইনে একটি এবং খুনের ঘটনায় অজ্ঞাত আসামী উলেৱখ করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ৩(৮)২০১৬ ও ৪(৮)২০১৬। অপর দিকে অপর ওয়ারেন্ট অফিসার ডি এ ডি মোঃ শাহিন মিয়া বাদী হয়ে অস্ত্র আইন, র‌্যাব সদস্যদের উপর হামলা ও র‌্যাবের গাড়ীতে হামলার কথা উলেৱখ করে আরো একটি মামলা দায়ের করে। মামলা নং ৫(৮)২০১৬। নান্দাইল মডেল থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ আতাউর রহমান তিনটি মামলা দায়ের করার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, থানার এসআই আব্দুল মোতালিব, আবু হানিফ ও আলীমুজ্জামানকে মামলার তদন্ত কারী কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ৯:৫৯ অপরাহ্ণ | আগস্ট ০৬, ২০১৬