|

ছিনতাইকালে জনতার হাতে পুলিশ সদস্য আটক

অনলাইন ডেস্ক | ৭ ডিসেম্বর ২০১৫, সোমবার,

সিলেটে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর কাছ থেকে দুই লাখ ছিনতাইয়ের সময় এক পুলিশ সদস্যকে ধাওয়া করে আটক করেছে জনতা। পরে তাকে টহল পুলিশের হাতে সোর্পদ করা হয়। এদিকে, ঘটনার পরপরই টাকা নিয়ে পালিয়ে গেছে অপর আরও একজন। তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছে সিলেটের কোতোয়ালি থানা পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত ছিনতাইকারী পুলিশ সদস্যের নাম সোহেল রানা। সে সিলেট জেলা পুলিশের মোটরযান সেকশনের কনস্টেবল। তার আইডি নম্বর ৪৯৫। দুপুর দেড়টার দিকে ছিনতাইর এ ঘটনা ঘটে। সিলেটের একটি বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী তামান্না আক্তার কলি দুপুর পৌণে ১২ টার সময় ২ লাখ টাকা নিয়ে তার ভাই সাগর আহমদের সঙ্গে বারুতখানাস্থ ডাচ বাংলা ব্যাংকে আসেন। ব্যাংক থেকে আরো ৬ লাখ ৯০ হাজার টাকা উত্তোলন করে জিন্দাবাজারস্থ ব্রাক ব্যাংকে জমা করার উদ্দেশ্য রওয়ানা দেন। এ সময় বারুতখানাস্থ পয়েন্টে এসে পৌঁছলে একটি মোটর সাইকেল এসে তার গতিরোধ করে। এ সময় বলে ওঠে-‘আপনার ব্যাগে কী।’ কলি জানান, ‘টাকা।’ এ কথা বলতেই ব্যাগে টান দেয় সোহেল রানা। কলির কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয় দুই লাখ টাকা। এসময় সঙ্গে থাকা আরও এক যুবকের হাতে টাকার ব্যাগ তুলে দেয়। ওই যুবক হাতে থাকা ব্যাগ নিয়ে জিন্দাবাজার অভিমুখে চলে যায়। এ সময় তার কলির চিৎকারে রিকশা থেকে তার ভাই ও অন্যান্যরা এগিয়ে আসলে ছিনতাইকারি বারুতখানার দিকে দৌঁড় দেয়। পালানোর সময় আশেপাশের সিকিউরিটি গার্ড ও জনতা তাকে ধরে ফেলেন। গণধোলাই দিয়ে পুলিশের হাতে সোপর্দ করেন। ছিনতাই’র শিকার কলি নগরীর ধোপাদিঘীর পাড় আল ফালাহ্ টাওয়ারের বাসিন্দা আনসার আলীর মেয়ে। সিলেটের কোতোয়ালী থানার ওসি সোহেল আরো জানান, কনস্টেবল শরীফ রানাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৬:২০ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ০৭, ২০১৫