|

বিএনপি-জামায়াত মানেই খুন খারাবি আর ধ্বংসের রাজনীতি: প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক,, ১৬ মে ২০১৫, শনিবার,

পাইনবাবগঞ্জ : বিএনপি ও জামায়াত জোটের কড়া সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘বিএনপি-জামায়াত মানেই খুন খারাবি আর ধ্বংসের রাজনীতি। এই রাজনীতি বাংলাদেশে চলবে না।’শনিবার বিকেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারি কলেজ মাঠে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক জনসভায় এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত এই দেশকে ধ্বংসের চেষ্টা করেছে, তাদের কোনো ক্ষমা নাই। তাদের বিচার বাংলাদেশের মাটিতে হবেই হবে। এরা মানুষের বন্ধু না শত্রু। এরা মানবতার বিরুদ্ধে কাজ করে। আমি আপনাদের কাছে বিনীতভাবে অনুরোধ করছি। আপনারা আওয়ামী লীগের হাতকে শক্তিশালী করুন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসা মানেই উন্নতি।’ শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা আপনাদের বিদ্যুৎ দিয়েছি। আওয়ামী লীগ বিদ্যুৎকেন্দ্র করে আর ওরা তা ধ্বংস করে।’ তিনি বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসলে তাণ্ডব চালায়। তারা যখন ক্ষমতায় তখন বিদ্যুতের অভাব। বিদ্যুতের হাহাকার। ওই কানসাটে মানুষ যখন হাহাকার করছিল তখন বিএনপি গুলি করেছিল।’  শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা জনগণের জন্য কাজ করি, তাদের জন্যই আমাদের সকল পদক্ষেপ। ছিটমহলবাসী এখন নাগরিকত্ব পেয়ে সুন্দরভাবে বাস করবে। আমরা চাই বাংলাদেশের মানুষ নাগরিক সুবিধা পাক। সরকারের আর যে বাকি সময় আছে, এই তিন বছর আট মাসের মধ্যে আমরা বাংলাদেশকে দারিদ্র্যমুক্ত দেশ হিসেবে গড়ে তুলব।’

এ সময় ব্রিটিশ পার্লামেন্টে এমপি নির্বাচিত শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপের জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জবাসীর দোয়া চান শেখ হাসিনা। নিজের বক্তব্যে বর্তমান সরকারের নেওয়া বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ও পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজ সবার দোরগোড়ায় কমিউনিটি ক্লিনিক করে দিয়েছি। আজ মা-বোনেরা পায়ে হেঁটে গিয়ে চিকিৎসা নিতে পারেন। ৩০ প্রকারের ওষুধ বিনামূল্যে পাচ্ছেন। বিনা পয়সায় আপনারা চিকিৎসা পান। উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ওয়েব ক্যামেরার ব্যবস্থা করা হয়েছে। কেন্দ্রগুলোকে আড়াইশো বেড করা হচ্ছে।’ হরতাল-অবরোধের সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আপনাদের ছেলেমেয়েদের আপনারা পড়ান। টাকা খরচ করে বই আপনাদের কিনতে হয় না। বই দিচ্ছে আওয়ামী লীগ সরকার। প্রতিবছর ১ জানুয়ারি আপনারা বই পাচ্ছেন। বই নিয়ে ছেলেমেয়েরা স্কুলে যাবে। পড়াশোনা করবে। এটা বোধহয় তাদের পছন্দ হলো না।’

তিনি বলেন, ‘খালেদা নিজে মেট্রিক ফেল করেছিলেন, ছেলে মেয়েদেরও পড়ালেখা করান নাই। তারা দেশের ছেলে মেয়েদেরও পড়াতে চায় না। খালেদা তার দুই ছেলেকে চুরি শিখিয়েছেন। তারা জনগণের পেটে লাথি মারে। গরিবের পেটে লাথি মারে।  খালেদাকে উদ্দেশ করে হাসিনা বলেন, ‘উনি তার অফিসে ৭৩ জন লোক নিয়ে বসে ছিলেন। বাইরে থেকে মজার মজার খাবার গেছে উনি পেট ফুলে খেয়েছেন। সরকারি টাকা নিয়ে ছেলেদের পড়ালেখা করান নাই। আপনাদের পড়া লেখা কিভাবে করতে দেবে। পরীক্ষার দিন তারা দিল হরতাল।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘৪০ বছর পর আমাদের কূটনৈতিক সাফল্য এসেছে। আমরা ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়ন করেছি। ভারতের সঙ্গে মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্র বিজয় করেছি। বিএনপি পারেনি কেন? আমরা যখন ক্ষমতায় এসেছি ভারতের কাছ থেকে ন্যায্য পানি এনেছি। বিএনপি পারেনি। শুধু দেশে না বিদেশেও আমরা সাফল্য অর্যন করি। বিএনপি মানুষি খুন ছাড়া আর কিছু করেনি।’  এ ছাড়া চাঁপাইনবাবগঞ্জে কোনো মানুষ গৃহহারা থাকবে না বলে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘খাসজমিতে ভূমিহীনদের থাকার ব্যবস্থা এবং জীবন-জীবিকার ব্যবস্থা করা হবে।’  এর আগে দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার মহানন্দা নদীর ওপর ‘শেখ হাসিনা সেতু’ (দ্বিতীয় মহানন্দা সেতু) উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনের পরই সেতুটি জনসাধারণের চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়।

জেলা শহর থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে সাহেবের ঘাটে ৫৪৬ দশমিক ৬০ মিটার দৈর্ঘ্য এবং আট দশমিক ১০ মিটার প্রস্থের কনক্রিট গার্ডার সেতুটি উদ্বোধন করা হয়। সেতুটি চালু হওয়ায় সদর উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের পাঁচ লাখের বেশি লোকের দীর্ঘদিনের ভোগান্তি অবসান হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ৭:৩৩ অপরাহ্ণ | মে ১৬, ২০১৫