|

ঢাকা উত্তর, দক্ষিণ ও চট্টগ্রামের মেয়র ও কাউন্সিলররা শপথ নিলেন

অন লাইন ডেস্ক: সদ্য নির্বাচিত ঢাকা উত্তর, দক্ষিণ ও চট্টগ্রামের মেয়র ও কাউন্সিলররা শপথ নিলেন ।  আজ বুধবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে তাদের শপথবাক্য পাঠ করানো হয়।

প্রথমে সকাল ১০টা ২৮ মিনিটে ঢাকার দুই ও চট্টগ্রামের কাউন্সিলরদের শপথ পাঠ করান স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। এরপর ১০টা ৩১ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক, ঢাকা দক্ষিণের সাঈদ খোকন ও চট্টগ্রামের আ জ ম নাছির উদ্দিনকে শপথ বাক্য পাঠ করান।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে এ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আবদুল মালেক।

২৫ মিনিটের সংক্ষিপ্ত এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী; বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ; শিল্পমন্ত্রী আমির হোসন আমু; বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমদ; কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী; বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন; প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা মশিউর রহমান, তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী, এইচ টি ইমাম, স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গাসহ মন্ত্রিপরিষদের সদস্য। আরো উপস্থিত ছিলেন সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকসহ সহস্র নাগরিক কমিটির নেতারা, সাঈদ খোকনের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সমন্বয়ক আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ড. আব্দুর রাজ্জাক, আনিসুল হকের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সমন্বয়ক আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক কর্নেল (অব.) ফারুক খান প্রমুখ। এছাড়াও সরকারের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

শপথবাক্যে যা পাঠ করলেন তারা
মেয়র ও কাউন্সিলরদের জন্য ছিল অভিন্ন শপথবাক্য। এক পৃষ্ঠার শপথবাক্যে বলা হয়- ‘আমি সিটি করপোরেশনের মেয়র/ কাউন্সিলর নির্বাচিত হইয়া সশ্রদ্ধ চিত্তে শপথ করিতেছি যে, আমি ভীতি বা অনুগ্রহ, অনুরাগ বা বিরাগের বশবর্তী না হইয়া সকলের প্রতি আইন অনুযায়ী এবং সততা, নিষ্ঠা ও বিশ্বস্ততার সহিত আমার পদের দায়িত্ব ও কর্তব্য পালন করিব। আমি বাংলাদেশের প্রতি অকৃত্রিম বিশ্বাস ও আনুগত্য পোষণ করিব।’

শপথ গ্রহণের সময় কাউন্সিলররা নিজেদের জন্য নির্দিষ্ট আসনে দাঁড়িয়ে ও মেয়ররা অনুষ্ঠান মঞ্চে প্রধানমন্ত্রীর পাশে দাঁড়িয়ে শপথ নেন।

প্রধানমন্ত্রীকে খোকন ও নাছিরের সালাম
শপথের আনুষ্ঠানিকতা শেষে প্রথমেই ঢাকা দক্ষিণের মেয়র সাঈদ খোকন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পা ছুঁয়ে সালাম করেন। প্রধানমন্ত্রী এ সময় খোকনের মাথায় স্নেহের পরশ বুলিয়ে দেন। পরে চট্টগ্রামের মেয়র আ জ ম নাছিরও প্রধানমন্ত্রীর পা ছুঁয়ে সালাম করেন। তাকেও প্রধানমন্ত্রী আশির্বাদ করেন। এ সময় ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

হঠাৎ যেন জনসভা!
তিনি নগরের মেয়র আর কাউন্সিলরদের শপথ- সংখ্যায় প্রায় ১৮০ জন। এর সঙ্গে যোগ হয়েছিলেন মেয়র ও কাউন্সিলরদের পরিবারের সদস্যরা। আর আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনগুলোর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা তো ছিলেনই। সব মিলিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ছিলো উপচে পড়া ভিড়। বসার আসন না পেয়ে অনেকেই ছিলেন দাঁড়িয়ে।

এরইমধ্যে শপথ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রবেশ করতেই জনসভায় রূপ নেয় অনুষ্ঠানটি। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সকল ভাবগাম্ভীর্যকে পাশ কাটিয়ে স্লোগান দিতে শুরু করেন কাউন্সিলররা। অনুষ্ঠানস্থলে শেখ হাসিনার প্রবেশ মাত্রই ‘বাংলাদেশ ধন্য/ শেখ হাসিনার জন্য’ ও ‘জয় বাংলা’ স্লোগান দিতে শুরু করেন সকলে।

স্লোগান শেষে পবিত্র ধর্মগ্রন্থ থেকে পাঠের মধ্য দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা।

প্রসঙ্গত, গত ২৮ এপ্রিল তিন সিটিতে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহণ শেষে ওই দিন রাতে বেসরকারিভাবে মেয়র ও কাউন্সিলরদের জয়ী ঘোষণা করা হয়। পরে ৩০ এপ্রিল বিজয়ী প্রার্থীদের নাম-ঠিকানাসহ গেজেট প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশন।

তিন মেয়রের পাশাপাশি ঢাকা দক্ষিণে ৫৭ জন সাধারণ ওয়ার্ডে ও ১৯ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর, ঢাকা উত্তরে সাধারণ ওয়ার্ডে ৩৬ জন, নারীদের জন্য সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ১২ জন এবং চট্টগ্রামে ৪১ জন কাউন্সিলর ও ১৪ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর নির্বাচিত হন।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ৫:০৯ অপরাহ্ণ | মে ০৬, ২০১৫