|

লুটপাটের আশঙ্কায় কাঠমাণ্ডুর বিধ্বস্ত মন্দিরগুলো

অনলাইন ডেস্ক | ৪ মে ২০১৫, সোমবার:

৭ দশমিক ৮ মাত্রার ভয়াবহ ভূমিকম্পে নেপালের রাজধানী কাঠমাণ্ডুর ‘মাঙ্কি টেম্পল’সহ ঐতিহাসিকভাবে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বেশ কয়েকটি মন্দির আংশিক বা পুরোপুরি ধসে পড়েছে। লুটপাটের আশঙ্কায় ৬১ বছর বয়সী পান্নাকাজি নামে এক বৌদ্ধ সন্ন্যাসী মন্দিরের বাইরে ধ্বংসস্তূপের মধ্যে বিছানায় শুয়ে পাহারা দিচ্ছেন। রাত নেমে এলেও, তার চোখে ঘুম নেই। সেখানে তার পূর্বসুরিরা ১,৬০০ বছর সন্ন্যাসী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। পাহাড়ের চূড়ায় অবস্থিত শম্ভুনাথ মন্দির নেপালের প্রাচীনতম ও পবিত্রতম মন্দিরগুলোর একটি। মন্দিরটির একটি অংশ ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। সপ্তম শতাব্দীতে নির্মিত কিছু অবকাঠামো ও মূর্তি এখনও অক্ষত রয়েছে। কিন্তু, প্রাকৃতিক নয়, এখন আতঙ্ক কৃত্রিম দুর্যোগের। শেষ পর্যন্ত শতাব্দী প্রাচীন ঐতিহ্যের এসব ধারক ও বাহকগুলোকে রক্ষা করা যাবে তো! রাতের অন্ধকারে লুট হওয়ার পাশাপাশি আশঙ্কা আছে কট্টর ধর্মাবলম্বী কিছু মানুষ হয়তো ভূমিকম্পের দুর্যোগের পর সৌভাগ্য ফিরিয়ে আনতে মূর্তিগুলো চুরি করতে পারেন। এদিকে ভূমিকম্প-পরবর্তী একের পর ভূকম্পনে বাকি স্থাপনাগুলোও ধসে পড়ার শঙ্কা রয়েছে। জাতিসংঘের সংস্থা ইউনেস্কো এরই মধ্যে মন্দিরটিতে ক্ষয়ক্ষতি বিশ্লেষণে বিশেষজ্ঞদের দল পাঠিয়েছে। চোরদের হাত থেকে মন্দিরটিকে রক্ষায়ও দায়িত্ব পালন করছেন তারা। একই আশঙ্কা অন্যান্য মন্দিরগুলোকে ঘিরেও।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ৪:৪৪ অপরাহ্ণ | মে ০৪, ২০১৫