|

জাতীয় পর্যায়ে নজরুল জন্ম জয়ন্তী দাবীতে ক্ষোভে উত্তাল ত্রিশাল, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ, ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম

এইচ.এম জোবায়ের হোসাইন, ত্রিশাল ব্যুরো,
জাতীয় কবি কাজী নজরম্নল ইসলামের বাল্য স্মৃতি বিজড়িত ময়মনসিংহের ত্রিশালের দরিরামপুর নজরম্নল মঞ্চে কবি নজরম্নলের ১১৬ তম নজরম্নল জন্ম জয়নত্মীর জাতীয় পর্যায়ের অনুষ্ঠানের দাবীতে  রোববার ২য় দিনের মত আবারো ঢাকা-ময়মনসিংহ মহা সড়ক অবরোধ করেছে ত্রিশালের নজরম্নল প্রেমী জনতা। বেলা সাড়ে ১১টা থেকে সোয়া ১টা পর্যনত্ম বিভিন্ন শ্রেণী পেশার নজরুল প্রেমিক জনতা এ অবরোধ করে। এ সময় আন্দোলনকারীরা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহা সড়কে টায়ারে অগ্নিসংযোগ করে। সকল প্রকার যান চলাচল বন্ধ করায় ময়মনসিংহ পর্যন্ত গাড়ী আটকে যায় এবং ঢাকার দিকে জয়দেবপুর পর্যন্ত গাড়ী আটকে পড়ায় চরম দুভোর্গে পড়েন যাত্রী সাধারণ। এ সময় অনেক যাত্রীদের পায়ে হেটে গন্তব্যস্থলে রওনা হতে দেখা যায়। চরম ভোগানিত্মতে পাড়েন শিশু সনত্মানদের নিয়ে মায়েরা।
১৯৬৬ সাল থেকে ময়মনসিংহের ত্রিশালের দরিরামপুরের নজরম্নল মঞ্চে নজরম্নল জন্ম জয়ন্তি জাতীয় পর্যায়ে ও সাংস্কৃতিক মন্ত্রনালয় ও জেলা প্রশাসকের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়ে আসলেও এ বছর জাতীয় কবি কাজী নজরম্নল ইসলামের জন্ম জয়ন্তী জাতীয় পর্যায়ের অনুষ্ঠান কুমিল্লায় স্থানান্তর করে সাংস্কৃতিক মন্ত্রনালয়। কবি নজরুলের ১১৬ তম জন্ম জয়ন্তীর জাতীয় পর্যায়ের মূল অনুষ্ঠান এ বছর কুমিল্লায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে বিভিন্ন পত্রিকার মাধ্যমে এ সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে ক্ষোভে-বিক্ষোভ, সভা, সমাবেশ, মানববন্ধন ও অগ্নি-সংযোগের আন্দোলনে উত্তাল হয়ে উঠেছে ত্রিশাল।
রোববার দুপুর সোয়া ১টার দিকে ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মোসত্মাকিম বিল্লাহ ফারুকীর নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু আহামদ আল মামুন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব হাসান শাহীন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আশরাফুল ইসলাম, ত্রিশাল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনিরুজ্জামান ঘটনাস্থলে গিয়ে উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে বক্তব্যকালে জেলা প্রশাসক  বলেন, সরকারের উচ্চ পর্যায়ে বিষয়টি আমি অবহিত করেছি। আলোচনা চলছে। অবরোধ প্রত্যাহার করার আহবান জানালে নজরম্নল ভক্তরা আগামী ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম দিয়ে দুপুর সোয়া ১টার দিকে অবরোধ তুলে নেয়। ২৪ ঘন্টার মধ্যে দাবী আদায় না হলে আগামীকাল (সোমবার) বেলা ১১টা থেকে আবারো ২৪ ঘন্টা অবরোধের কর্মসূচী ঘোষনা করা হয়।
জেলা প্রশাসক মোসত্মাকিম বিলস্নাহ ফারম্নকী জানান, বিষয়গুলো প্রশাসনের উচ্চ পর্যায়ে অবহিত করা হয়েছে। জাতীয় পর্যায়ের অনুষ্ঠানগুলো সম্পর্কে সব বিষয়ে জানানো হয়েছে। আলোচনা চলছে, সিদ্ধানত্ম আসলে আমরা ব্যবস’া নেব।
পায়ে হেটে যাওয়া রিপন নামের একযাত্রী জানান, আমি আমার স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে অসুস্থ বাবাকে দেখতে গ্রামেরবাড়ী নেত্রকোনায় যাচ্ছি। অবরোধের কারণে প্রায় ২ঘন্টা যাবত আটকে থাকার পর একণ পায়ে হেটেই পথ পারি দেওয়ার চেষ্ঠা করছি।
জেলার শেরপুরগামী আনোয়ারা বেগম নামের একযাত্রী জানান, ঢাকা-থেকে বাড়ী যাচ্ছিলাম, সীডস্টোর আসার পর অবরোধের কবলে পড়ি। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে হেটেই রওনা দিয়ে প্রায় ২ ঘন্টায় এ পর্যনত্ম এসেছি।
অবরোধ কর্মসূচীতে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহা সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকায় শত শত যাত্রীবাহী বাস আটকা পড়ে। বাস, ট্রাক, লেগুনা, সি.এন.জিসহ সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েন যাত্রী সাধারণ।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ৫:৩১ অপরাহ্ণ | মে ০৩, ২০১৫