|

৩ সিটিতেই ভোট বর্জনের ঘোষণা বিএনপির

অন লাইন ডেস্ক,২৮ এপ্রিল ২০১৫, মঙ্গলবার:

তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। বিএনপির পক্ষ থেকে স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বেলা সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘোষণা দেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন ঢাকা উত্তরের প্রার্থী তাবিথ আউয়াল এবং দক্ষিণের প্রার্থী মির্জা আব্বাসের স্ত্রী আফরোজা আব্বাস। মওদুদ আহমদ বলেন, র‌্যাব-পুলিশ এবং সরকারি দলের লোকজন আমাদের সব এজেন্টকে বের করে দিয়েছে। এটা কোন নির্বাচন হয়নি। এটা একটি ভোট বিহীন নির্বাচন। এ নির্বাচনকে আমরা প্রত্যাখ্যান করি। এই মুহূর্ত থেকে আমরা এ নির্বাচন বর্জন করছি। এর আগে চট্টগ্রামে মনজুর আলম ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।
বেলা ১২টার দিকে নয়াপল্টন কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন, পুলিশ ও র‌্যাব সরকারের ইচ্ছাপূরণ করতে গিয়ে আমাদের এজেন্টদের মারধর করে বের করে দিয়েছে। দক্ষিণে ৫৮টি ওয়ার্ডে দু’একটি কেন্দ্র ছাড়া সব কেন্দ্রেই সকাল ৯টার মধ্যে ভোট শেষ হয়ে গেছে। সরকারি দলের লোকজন কেন্দ্র দখল করে সিল মেরেছে। উত্তরের প্রায় সব ওয়ার্ডেই একই ধরণের ঘটনা ঘটেছে। শুধু সরকারি দলের লোকজনকেই কেন্দ্রে প্রবেশ করে দেয়া হয়েছে।  প্রফেসর এমাজউদ্দীন আহমেদ ঢাকা কলেজ কেন্দ্রে ভোট দেয়ার জন্য গেলে তাকে লাঞ্চিত করা হয়েছে। তাকে বলা হয়েছে, আপনি কেন ভোট দিতে এসেছেন। আপনার ভোট দেয়ার কোন অধিকার নেই। ৫ শতাংশ মানুষও ভোট দিতে পারে নি। তিনি বলেন, নির্বাচনের পূর্বে সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা তাদের ভোটারদের মাঝে চিরকুট সরবরাহ করে। সেই চিরকুট দেখালে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে। বর্তমানে কেন্দ্রগুলোতে পুলিশ ও র‌্যাবের সহযোগীতায় নিজেরাই নিজেদের ভোট দিচ্ছে। তাই এ নির্বাচন আমরা প্রত্যাখ্যান করছি। এটা নির্বাচনের নামে প্রহসন ছাড়া কিছুই না। এই নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনের সবচেয়ে বড় পরাজয় ঘটেছে। মওদুদ আহমেদের পর দক্ষিণের মেয়র প্রার্থী মির্জা আব্বাসের স্ত্রী আফরোজা আব্বাস কথা বলেন। তিনি বলেন, কোন ভোট হয়নি। ভোটাররা ভোট দিতে পারেননি। ভোটের নামে ডাকাতি হয়েছে। এরপর উত্তরের মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল তার প্রতিক্রিয়া জানান। তিনি বলেন, যা হয়েছে তাকে কিছুতেই ভোট বলা উচিত হবে না। গতকালই আমাদের সব ক্যাম্প ভেঙে ফেলা হয়।

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বশেষ আপডেটঃ ৫:১২ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ২৮, ২০১৫